Planted 19,672 Trees....Mission 1 Lac Trees

Sunday, October 29, 2017

বনায়ন


প্রাকৃতিক উপায়ে কার্বন ডাই অক্সাইডের মাত্রা ও তাপমাত্রা কমানোর প্রধান উপায় হলো বনায়ন। আগে কখনও এ বিষয় নিয়ে কেউ মাথা ঘামিয়েছে বলে মনে হয়না। কারণ সবুজ শ্যামলের দেশ বাংলাদেশ। ভয়পুর অক্সিজেন! কিন্তু সারাবিশ্বের বৈশ্বিক পরিবর্তনের পাশাপাশি এবং আমাদের অপরিকল্পিত নগরায়ন ও শিল্পায়নের ফলে বাংলাদেশের পরিবেশ আজ হুমকির মুখে। আমাদের সবার প্রিয় বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ এলাকা সুন্দরবনও আজ গুমকির মুখে। এখনই সময় সবার এগিয়ে আসার। প্রতিবাদ করার। সমাধানের উপায় খুজে বের করা। তা না হলে আইলা, সিডর, মহাসেন, রানা প্লাজার মত ঘটনা আরো বাড়তেই থাকবে।

এই পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে দেশকে রক্ষার জন্য বনায়নের কোন বিকল্প নেই। জঙ্গল কেটে কলকারখানা স্থাপন করে প্রবৃদ্ধি অর্জন করবেন? মহাসেন এসে সব ধ্বংস করে দিয়ে যাবে। তখন আর কোন দিসা খুজে পাওয়া যাবে না। বনায়নের মাধ্যমে সৃষ্ট গাছপালা মানুষের জীবনরক্ষাকারী প্রধান উপাদান অক্সিজেন সরবরাহ করে এবং কার্বন ডাই অক্সাইড গ্রহণ করে পরিবেশকে বিপর্যয়ের হাত হতে রক্ষা করে। পরিবেশ বিজ্ঞানীদের মতে আন্তর্জাতিক সমীক্ষায় দেখা গেছে যে, ১ হেক্টর বন দৈনিক ৯০০-৯৫০ কেজি কার্বন-ডাই-অক্সাইড শোষণ করে এবং ৬০০-৬৫০ কেজি অক্সিজেন সরবরাহ করে বাতাসে কার্বন -ডাই-অক্সাইডের পনিমাণ সাম্যাবস্থায় রাখে। মাত্র কয়েক হেক্টর বনরাজি স্থানীয়ভাবে ৩-৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা হ্রাস করতে পারে। বনায়নের ফলে কি ধরনের উপকার আমরা পেতে পারি এবং নগরায়নের ফলে সৃষ্ট সমস্যা কিভাবে সমাধান হতে পারে তা জেনে নিন।

কার্বন-ডাই-অক্সাইড নিয়ন্ত্রণ: নগর এলাকায় জনসংখ্যা এবং শিল্প কারখানা বৃ্দ্ধির ফলে প্রতিদিন বাতাসে সঞ্চিত হচ্ছে ক্ষতিকর গ্যাস ও বিষাক্ত পদার্থ। বনায়নের মাধ্যমে সৃষ্ট বৃক্ষরাজি বাতাসের এই ক্ষতিকর কার্বন-ডাই-অক্সাইড গ্যাস ও বিষাক্ত পদার্থ শোষণ করে পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে আমাদের রক্ষা করে।

অক্সিজেন সরবরাহ:  বনায়নের মাধ্যমে সৃষ্ট গাছপালা সালোক সংশ্লেষণের মাধ্যমে কার্বন-ডাই-অক্সাইড কে অক্সিজেনে রুপান্তরিত করে এবং পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত থেকে রক্ষা করে।

জলবায়ুর তীব্রতা নিয়ন্ত্রণ: শহর এলাকায় কলকারখানা বেশি থাকে এবং প্রচুর রাসায়নিক পদার্থের বাতাসের সাথে মিশ্রণ ঘটে। এরফলে আবহাওয়া গরম হয়ে যায়। প্রচন্ড গরম অথবা শুষ্ক আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণে বনায়নের কোন বিকল্প নেই। একটি বড় গাছ দিনে প্রায় ১০০ গ্যালনের মত পানি প্রস্বেদনের মাধ্যমে চারদিকের বাতাসে ছড়িয়ে দেয় এর ফলে সে গাছের চারপাশে তাপের মাত্রা অনেক কমে যায় এবং পরিবেশ বিপর্যয়ের হাত হতে রক্ষা পায়।

ভূমিক্ষয় রোধ: ভূমি ক্ষয় রোধে বনায়ন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের তথ্যের বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, প্রতি বর্গমাইলে ফসলী জমি থেকে মাটির ক্ষয় হয় ২২০০ পাউন্ড, ঘাসে ঢাকা জমি থেকে ১৭০০ পাউন্ড আর বনভূমি থেকে ক্ষয় হয় মাত্র ৩৬০ পাউন্ড।

ঝড়-বন্যা থেকে পরিবেশকে নিয়ন্ত্রণ: বায়ুর নিম্নচাপ জনিত কারণে অন্য স্থানের বাতাস যখন প্রচন্ড বেগে নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে যায় তখনই ঝড়ের সৃষ্টি হয়। ফলে পরিবেশ বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়। একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে একটি ঘন বৃক্ষ ৩০ মাইল বেগের বাতাসকে ৭৫ ভাগ কমাতে সাহায্য করে এবং তার চারপাশে ২০ ভাগ গতি কমাতে পারে তার উচ্চতার ২০ গুণ দুরুত্ব পর্যন্ত। অন্যদিকে বৃষ্টিপাত এবং বন্যা থেকে রক্ষা পাবার জন্য বনায়ন নদ-নদীর উৎসগুলোর পানি ধারণ ক্ষমতা বাড়ায় , ভূমিক্ষয় রোধ করে, এবং বন্যার প্রকোপ হতে রক্ষা করে।

গ্রীন হাউস: পরিবেশ বিপর্যয়ের অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে গ্রীন হাউস প্রভাব যা বনায়ন গ্রাস পাবার কারণে সৃষ্টি হয়। বনায়নের মাধ্যমে পরিবেশকে গ্রীন হাউসের প্রভাব মুক্ত রাখা যায়।

No comments:

Post a Comment